দৃশ্যমান হচ্ছে বঙ্গবন্ধু টানেল

দৃশ্যমান হচ্ছে বঙ্গবন্ধু টানেল

রয়েল ভিউ ডেস্ক:
কর্ণফুলী নদীর সুড়ঙ্গের কাজ শেষ হলো বলে। এবার রাস্তা তৈরির অপেক্ষা। আশা করা হচ্ছে এক বছরের মধ্যে টানেলটি খুলে দেওয়া হবে যানবাহনের জন্য। ফলে  দৃশ্যমান হচ্ছে চট্টগ্রামে কর্ণফুলী নদীর তলদেশে নির্মিতব্য দেশের প্রথম টানেল, বঙ্গবন্ধু টানেল। নদীর তলদেশে একটি টিউব বসানো হয়েছে গত বছর, আর আগামীকাল শেষ হচ্ছে দ্বিতীয় টিউবের খনন কাজ। আর এর মাধ্যমে সংযুক্ত হবে কর্ণফুলী নদীর দুপাড়। ওয়ান সিটি, টু টাউন মডেলের এ টানেলের ৭৩ শতাংশ কাজ শেষ; ২০২২ সালের ডিসেম্বরের আগেই চালুর আশা সরকারের।

বন্দরনগরীর পতেঙ্গায় কর্ণফুলী নদী তীরে চলছে বিশাল কর্মযজ্ঞ। ধীরে ধীরে দৃশ্যমান হচ্ছে বহু কাঙ্ক্ষিত কর্ণফুলী টানেল।

কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন হয় ২০১৬ সালে। নির্মাণ শেষ হওয়ার কথা ২০২২ সালের ডিসেম্বরে। এখন পর্যন্ত ৭৩ শতাংশ কাজ শেষ। নির্ধারিত সময়ের আগেই যান চলাচলের জন্য টানেলটি খুলে দেয়া যাবে বলে আশা প্রকল্প পরিচালক হারুনুর রশীদের। তিনি বলেন, কোনো সমস্যা না হলে নির্ধারিত সময়ের আগেই চালু হবে টানেলটি।

চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্সের সাবেক পরিচালক মাহফুজুল হক শাহের মতে, টানেলটি চালু হলে সাংহাইয়ের ওয়ান সিটি টু টাউন আদলের নগরী হবে চট্টগ্রাম। দেশি বিদেশি বিনিয়োগ বৃদ্ধির পাশাপাশি দক্ষিণ চট্টগ্রামে খুলবে শিল্পায়ন, আবাসন, পর্যটন শিল্পের নতুন দুয়ার।

৩ দশমিক ৪ কিলোমিটার দীর্ঘ টানেলটি নির্মাণ করছে চায়না কমিউনিকেশন কনস্ট্রাকশন কোম্পানি। সম্পূর্ণ প্রকল্পে খরচ হচ্ছে প্রায় ১০ হাজার ৩৭৪ কোটি টাকা।