ফ্রান্সে পেনশনের লোভে ৭ বছর মায়ের মরদেহ লুকিয়ে রাখলো সন্তান

 ফ্রান্সে পেনশনের লোভে ৭ বছর মায়ের মরদেহ লুকিয়ে রাখলো সন্তান

রয়েল ভিউ ডেস্ক :

মায়ের পেনশন ভোগ করার লোভে সাত বছর ধরে মায়ের মরদেহ একটি অ্যাপার্টমেন্টে লুকিয়ে রাখার অপরাধে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে এ ঘটনা ঘটেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন নিউজ ডে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, সাত বছর ধরে মায়ের মরদেহ একটি অ্যাপার্টমেন্টে সংরক্ষণ করে নিয়মিত তার মায়ের পেনশন নিত বলে অভিযোগ রয়েছে এই ব্যক্তির বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার নিজেই পুলিশের কাছে গিয়ে মায়ের মরদেহ সংরক্ষণ করে সাত বছর তার পেনশন গ্রহণ করার কথা স্বীকার করেন ওই ব্যক্তি। এ ঘটনায় প্রথমে পুলিশ তাকে কারাগারে পাঠালেও পরে তাকে মুক্তি দেয়।

প্রতিবেদনে আরো জানা গেছে, গ্রেফতার হওয়া ওই ব্যক্তির নাম সাসা। সে সার্বিয়ান বংশোদ্ভূত। তার বয়স ৪৭ বছর। তার মায়ের নাম জল্গাকা, ৭৫ বছর বয়সী এই নারী ২০১৪ সালে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে ওই অ্যাপার্টমেন্টে মারা যান।

ফ্রেঞ্চ দৈনিক লা প্যারিসিয়ানের বরাতে প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, এ ঘটনার পর সাসাকে নিয়ে পুলিশের একটি দল তার অ্যাপার্টমেন্টে হাজির হয়। সেখানে একটি বাথরুমে তার মায়ের মরদেহ খুঁজে পায় তারা। মরদেহটি মমি করে মুড়িয়ে একটি স্যুটকেসে রাখা ছিল।

সাসা জানায়, মায়ের মৃত্যুর পর তার মরদেহ একটি আলমারিতে লুকিয়ে রাখে সে। পচা গন্ধ ঠেকাতে আলমারির ছিদ্র ও ফাঁকা জায়গাগুলো ফোম দিয়ে বন্ধ করে দেয়। মায়ের মরদেহ লুকিয়ে সংরক্ষণ করার একমাত্র কারণ ছিল যেন সে মায়ের পেনশন তুলতে পারে।

প্রতিবেশীরা তার মায়ের ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করলে সাসা বলতেন, তার মা জীবনের শেষ দিনগুলো উপভোগ করার জন্য সার্বিয়ায় ফিরে গেছেন।

তবে সম্প্রতি অ্যাপার্টমেন্ট মালিক তাকে বাসা ছেড়ে দেয়ার কথা বললে মায়ের মরদেহ নিয়ে বিপদে পড়ে যায় সাসা। এই মরদেহ নিয়ে কী করবে, বুঝতে না পেরে শেষে পুলিশের কাছে ধরা দেয় সে।